শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সাভারে স্কুলছাত্রী নীলা হত্যাকান্ডে মিজানের বাবা মা আটক সাতক্ষীরায় পানিবন্দী মানুষের অবস্থান কর্মসূচি ও মানববন্ধন তুরাগ নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার সাভার, আশুলিয়া ও ধামরাইয়ে বিভিন্ন অপরাধীদের নামে ৪’শ ২৮টি মামলা নন্দীগ্রামে খাস পুকুরে পানি নিষ্কাশন নিয়ে মারামারি, আহত ২ শেকৃবিতে রেজিস্ট্রারকে চলতি ভিসির দ্বায়িত্ব দেওয়ায় বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নিন্দা তাহিরপুরে অজ্ঞাত বৃদ্ধার ঠিকানা খুঁজছে এলাকাবাসী নিবন্ধন না থাকায় সাভারে বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা আশুলিয়ায় স্কুল পড়ুয়া কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা, সাভারে ২ জনের লাশ উদ্ধার পাটগ্রামে ভারতীয় শাড়ী ও কসমেটিক্স সহ আটক ২

আশুলিয়ায় মাদ্রাসায় দুই শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যাতন, অভিযুক্ত শিক্ষকসহ আটক ৪

মোঃ শামীম হোসেন, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি

সাভারের আশুলিয়ায় একটি মাদ্রাসায় দুই শিশু শিক্ষার্থীকে প্রকাশ্যে হাত পা বেধে রেখে মারধর করার অভিযোগে অভিযুক্ত শিক্ষক ইব্রাহিম মিয়াসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার রাতে আশুলিয়ার স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়নের শ্রীপুরের নতুননগর মধনেরটেক এলাকায় জাবালে নুর মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত ১১ সেপ্টম্বর তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশুলিয়ার শ্রীপুরের নতুননগর মধনেরটেক এলাকায় জাবালে নুর মাদ্রাসায় শিশু শিক্ষার্থী রাকিব হোসেনকে (৯) হাত পা বেধে প্রকাশ্যে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক ইব্রাহিম মিয়া (৩৩)। এসময় ওই শিক্ষক আরেক শিশু শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমানকে বেধে রেখে ভয়ভীতি প্রদর্শন করেও তাকে মারধর করেন। পরে খবর পেয়ে শিশু দুটিকে উদ্ধার করে পরিবারের সদস্যরা। এদের মধ্যে শিশু রাকিব হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে টাঙ্গাইলের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পরে সোমবার সকালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শিশু শিক্ষার্থীকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল হলে দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। পরে রাতেই অভিযান চালিয়ে ওই শিক্ষকসহ চারজনকে আটক করে পুলিশ। এলাকাবাসী জানায়, গত দুই বছর আগে আশুলিয়ার শ্রীপুরের নতুননগর মধনেরটেক এলাকায় জাবালে নুর মাদ্রাসা চালু করেন ওই এলাকার বিতর্কিত ব্যক্তি আব্দুল জব্বার। ওই মাদ্রাসায় আগে দুই’শ শিক্ষার্থী থাকলেও নির্যাতনের কারণে এখন ১৪ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। ওই মাদ্রাসায় বর্তমানে দুই জন শিক্ষক রয়েছে।

এবিষয়ে স্থানীয় স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম দ্রুত ওই শিক্ষকের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন।

এবিষয়ে আশুলিয়া থানার ওসি এস এম কামরুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় তার অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ