শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সাভারে নীলা রায় হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা মিজানসহ ২ জন আটক আবারো জাগ্রত সর্বহারা পার্টি বিভিন্ন মহলে চাঁদাদাবী সাভারে স্কুলছাত্রী নীলা হত্যাকান্ডে মিজানের বাবা মা আটক সাতক্ষীরায় পানিবন্দী মানুষের অবস্থান কর্মসূচি ও মানববন্ধন তুরাগ নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার সাভার, আশুলিয়া ও ধামরাইয়ে বিভিন্ন অপরাধীদের নামে ৪’শ ২৮টি মামলা নন্দীগ্রামে খাস পুকুরে পানি নিষ্কাশন নিয়ে মারামারি, আহত ২ শেকৃবিতে রেজিস্ট্রারকে চলতি ভিসির দ্বায়িত্ব দেওয়ায় বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নিন্দা তাহিরপুরে অজ্ঞাত বৃদ্ধার ঠিকানা খুঁজছে এলাকাবাসী নিবন্ধন না থাকায় সাভারে বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা

কঠিন সময়ে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি সুনজর নেই কেন

কুলাউড়া প্রতিনিধি

দেশে সব শ্রেণীপেশার সম্মানিত পেশাজীবি রয়েছেন। এর মধ্যে রাষ্ট্রের সাংবিধানিক উচ্চপদস্থ গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি পদের পরেই গণমাধ্যমকর্মীকে রাষ্ট্রের ৪র্থ স্থম্ভ বলা হয় সেটি গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য অনেক বড় সম্মানজনক স্থান।

আজ এই কঠিন পরিস্থিতিতে সত্যি কথা লিখতেই হচ্ছে সব স্থরের পেশাজীবিরাই দায়িত্বপালনকালে কোন না কোন ভাবে গণমাধ্যমকর্মীদের তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে তাদের বিভিন্ন কার্যক্রমের তথ্য সমাজের মানুষের কাছে ফুটে উঠার কারনেই তাঁরা হিরো হয়ে যান এই বিষয়টি অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই।

পাশাপাশি যে কোন বিপদকালীন সময়ে প্রশাসনিক ও জনপ্রতিনিধি পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের পাশে থেকেই স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরাই কাজ করে থাকেন। কিন্তু আমি লক্ষ করলাম দিন শেষে সংকটময় বিপদকালীন সময়টিতে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি কারো তেমন সুনজর নেই কেন। সেটি আমি একজন গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে প্রশ্ন রাখছি! অসহায় মানুষের পাশে আপনারা পাশে থেকে সহায়তা করছেন সেটি প্রশংসনীয় ও মানবদরদী কার্যক্রম। কিন্তু একটিবারও চিন্তা করছেন? যাদের লেখনীর মাধ্যমে অাপনারা ছোট ছোট কাজ করে হিরাে সেজে যান সমাজের কাছে। মেনে নিলাম হিরো সেজেছেন তাতে কোন সমস্যা দেখছি না কিন্তু গণমাধ্যম পেশার কোন সদস্য অসহায় অাছে? অতবা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে কিভাবে দিন পার করছে এই খোঁজটুকু অন্তত কেউ নিচ্ছেন না সেটি খুবই দুঃখজনক। ভাবতে অবাক লাগছে এই গণমাধ্যমকর্মীরা কত প্রবাসী ও সমাজের বিত্তশালীদের মানবকল্যাণমূলক কাজের তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশ করে থাকেন কিন্তু অাজ তাঁরাও কোন উদ্যোগ নিতে চোঁখে পড়ছে না। তার মানে শুধু গণমাধ্যমকর্মীরাই অবহেলায়!

বিশেষ করে এই কঠিন দুঃস্বময়ে একজন ছাত্রনেতা সাঈদ খান শাওন তাঁর সাধ্য অনুযায়ী কুলাউড়ার প্রায় ২২ জন গণমাধ্যমকর্মীদের পিপিই উপহার দেয়ায় স্থানীয় সংবাদকর্মীদের মুখে অন্তত কিছুটা হলেই হাসি ফুটেছিলো। অার কেউ এগিয়ে আসতে দেখিনি এখন পর্যন্ত! তারপরও মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে সাংবাদিকরা প্রতিনিয়ত দায়িত্ববোধ থেকেই সংবাদ প্রকাশ করে যাচ্ছে। যাক পরিশেষে বলছি সাংবাদিকের নিজস্ব মতামত প্রকাশের জায়গা সংবাদপত্র এটাই সবচেয়ে বড় শক্তি। অার গণমাধ্যমকর্মীদের সংবাদে সমাজের চিত্র আরো ফুটে উঠুক এটাই অামার অাশা। সবাই সুস্থ শরীরে নিরাপদে বেঁচে থাকুন এই প্রত্যাশায় অাশরাফুল ইসলাম জুয়েল (গণমাধ্যমকর্মী কুলাউড়া মৌলভীবাজার)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ