মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন

জামালপুরে করোনা আক্রান্ত ১ জনকে ময়মনসিংহে স্থানান্তর

মো. বিল্লাল হোসাইন, জামালপুর

করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় জামালপুরের দেওয়াগঞ্জে শনাক্ত হওয়া রোগীকে ময়মনসিংহে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। ৪০ বছর বয়সী ওই রোগীটির অবস্থার অবনতি হওয়ায় গতকাল বুধবার রাতেই তাকে ময়মনসিংহের এসকে হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে পাঠানো হয়। শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যাসহ রোগীটি দাঁড়াতে অক্ষম হওয়ায় ভেন্টিলেটরের সাহায্যে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য তাকে ময়মনসিংহে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. আবু সাঈদ মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান।

আক্রান্ত ৪০ বছরের ওই ব্যক্তি সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ থেকে দেওয়ানগঞ্জের চরভবসুর ঠোটাপাড়ার গ্রামে নিজবাড়িতে আসেন। নারায়ণগঞ্জ হতেই তিনি সর্দিজ্বর নিয়ে বাড়িতে আসলে খবর পেয়ে মঙ্গলবার তার নমুনা সংগ্রহ করে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। গতকাল বুধবার রাতে ওই রোগীকে এম্বুলেন্সযোগে বাড়ি থেকে এনে জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে রাখার কথা ছিল। রোগীর অবস্থার অবনতি দেখে তাকে রাতেই শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে না নিয়ে ওই এম্বুলেন্সযোগেই ময়মনসিংহের এসকে হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়।

সিভিল সার্জন ডা. আবু সাঈদ মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান, দেওয়ানগঞ্জে আক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে রাতেই জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে রাখার কথা ছিল। স্বাস্থ্য বিভাগের টিম ওই রোগীকে আনতে গেলে তার অবস্থা খারাপ দেখতে পান। শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যাসহ রোগীটি দাঁড়াতে অক্ষম হওয়ায় তাকে ভেন্টিলেটরের সাহায্যে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য ময়মনসিংহের এসকে হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে পাঠানো হয়। সেখানে রোগীকে ভেন্টিলেশন যন্ত্রের মাধ্যমে সাপোর্ট দেওয়া হবে। রোগীর ফুসফুস যদি কাজ না করে তাহলে রোগীর নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের কাজটা ভেন্টিলেশন যন্ত্র করে দেবে। এর মাধ্যমে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়তে এবং পুরোপুরিভাবে সেরে উঠতে রোগী হাতে কিছুটা সময় পাবেন। নানা ধরনের ভেন্টিলেশন যন্ত্র দিয়ে এই কাজটা করা হয়।

তিনি আরও জানান, জামালপুরে বৃহস্পতিবার ১৬ এপ্রিল এ ০৯ জনের নমুনার প্রতিবেদনে নতুন করে কেউ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ সনাক্ত হয়নি। এ পর্যন্ত মোট সনাক্ত ১৬ জন। এদের মধ্যে জামালপুর সদরে ১, মেলান্দহে ২, মাদারগঞ্জে ৪, বকশীগঞ্জে ২, দেওয়ানগঞ্জে ৩ ও ইসলামপুরে ৪ জন।

মোট হোম কোয়ারান্টাইনে ৮৫৬ জন, মোট ছাড়পত্র ৬৬৩ জন, প্রতিবেদন প্রকাশ সময় পর্যন্ত মোট অাইসোলেশনে ১৪, ময়মনসিংহে রেফার্ড ১ জন। মোট মৃত ব্যক্তির নমুনা সনাক্ত ইসলামপুরের ২ জন। মোট ৩৩৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ