শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০২:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রপ্তানি আয়ের অন্যতম উৎস হবে আম: কৃষিমন্ত্রী খাবার না থাকলে আমাকে জানান, আমি বাড়ি বাড়ি খাবার পৌছে দিব: এমপি আনার অমুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনের অভিযোগ স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কমলগঞ্জে হিন্দু ছাত্র পরিষদের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ময়মন‌সিং‌হের শম্ভুগ‌ঞ্জে প্রায় শতা‌ধিক দোকানে ধর্মঘট শেরপুরের শ্রীবরদীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার সাংসদ কন্যা ডরিন এর নেতৃত্বে রোজা রেখেও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এক কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ করোনা সঙ্কটে আবারো অসহায় মানুষের পাশে সাংসদ কন্যা ডরিন সাভারে দুই নারী ধর্ষণের শিকার, আটক ২ ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে তিস্তায় ডুবে একজনের মৃত্যু

জুড়ীতে কোরবানীর হাটে গরু বেশী ক্রেতা কম

সালমান হোসাইন, জুড়ী (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে কোরবানীর হাটে প্রচুর পরিমাণে গবাদি পশু থাকলেও ক্রেতার সংখ্যা অনেক কম। গত বছরের তুলনায় এবার অর্ধেক ক্রেতাও নেই। উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পশুর হাট কামিনীগগঞ্জ বাজারে বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া যায়।

এ বাজারের নিয়মিত ও মৌসুমী গবাদি পশু বিক্রেতা-ক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পশুর হাটের জন্য নির্ধারিত স্থান পেরিয়ে আশে-পাশের প্রতিটি গলি ও সড়ক পশুতে সয়লাব হয়ে গেছে। করোনাভাইরাস কেন্দ্রিক বৈশ্বিক মহামারীর প্রভাব সর্বত্র বিরাজমান। স্থানীয় ভাবে বিভিন্ন ব্যবসায় ধস নামার পাশাপাশি প্রবাসীরাও বেশ ক্ষতিগ্রস্থ। এমতাবস্থায় কোরবানীতে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে- গত বছরের তুলনায় এবার কোরবানীদাতার সংখ্যা অর্ধেকে নেমে এসেছে। তাছাড়া গতবারের চেয়ে এবার গরুর দামও অনেক কম হবার পরেও ক্রেতা নেই। যে কারণে নিয়মিত গরু ব্যবসায়ীরা খুব বেশী ক্ষতিগ্রস্থ না হলেও ঈদ কেন্দ্রিক মৌসুমী খামারীরা ব্যাপক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। বড় গরু গুলোতে খরচের তুলনায় দাম পাওয়া যাচ্ছে না।

সে হিসেবে ছোট গরু গুলো সুবিধামত দামে বিক্রি হচ্ছে। গত বছর যে বা যাহারা লাখ টাকায় গরু কিনেছেন, বৈশ্বিক দুর্ভোগের শিকার হয়ে তাঁদের অনেকেই এবার ১৫/২০ হাজার টাকায় খাসী/ছাগল কিনে নিতে দেখা যায়। কামিনীগঞ্জ বাজারের মত উপজেলার ফুলতলাবাজার গরুর হাটেও একই অবস্থা বিরাজমান। শুধু পশু বিক্রেতা-ক্রেতা নয়, করোনা ভাইরাসের কারণে বাজার ইজারাদারগণ সবচেয়ে বেশী আর্থিক ক্ষতির সম্মূখীন হচ্ছেন।

কামিনীগঞ্জ বাজার ইজারাদার ও জায়ফরনগর ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মাছুম রেজা বলেন, গত বছর এদিনের তুলনায় এবারের এদিনের আয় বিশ ভাগে নেমে এসেছে। সরকারি নির্দেশনায় প্রায় চার মাস বাজার বন্ধ ছিল। এরপর বাজার খুললেও করোনা ভাইরাস, গরুর বিভিন্ন রোগ, দেশী-প্রবাসীদের আর্থিক সংকট, বিয়ে ও শিরণী ইত্যাদি বন্ধ থাকার কারণে পশু বিক্রি নেই বললেই চলে। তিনি ক্ষতিগ্রস্থ হাটবাজার ইজারাদারদের প্রতি সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স