শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ১২:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রপ্তানি আয়ের অন্যতম উৎস হবে আম: কৃষিমন্ত্রী খাবার না থাকলে আমাকে জানান, আমি বাড়ি বাড়ি খাবার পৌছে দিব: এমপি আনার অমুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনের অভিযোগ স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কমলগঞ্জে হিন্দু ছাত্র পরিষদের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ময়মন‌সিং‌হের শম্ভুগ‌ঞ্জে প্রায় শতা‌ধিক দোকানে ধর্মঘট শেরপুরের শ্রীবরদীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার সাংসদ কন্যা ডরিন এর নেতৃত্বে রোজা রেখেও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এক কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ করোনা সঙ্কটে আবারো অসহায় মানুষের পাশে সাংসদ কন্যা ডরিন সাভারে দুই নারী ধর্ষণের শিকার, আটক ২ ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে তিস্তায় ডুবে একজনের মৃত্যু

ঝালকাঠি জেলায় ৩৫৯ জনের করোনায় শনাক্ত

আবু জাফর বিশ্বাস, ঝালকাঠি প্রতিনিধি

ঝালকাঠি জেলায় বৃহস্পতিবার ২৪ ঘন্টায় করোনা ভাইরাসে আরো ৬ জনসহ মোট ৩৫৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন করে জেলার রাজাপুর উপজেলায় ৫জন ও নলছিটি উপজেলা ১জনের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে।

এছাড়া জেলায় এ পর্যন্ত ১৭৪ জন কারনো ভাইরাস মোকাবেলা করে সুস্থ এবং ১২জনের মৃত্যু হয়েছে ঝালকাঠির সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবুয়াল হাসান জানিয়েছে। এদিকে জেলায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনা উপসর্গ নিয়ে প্রায় অর্ধশত মানুষের মৃত্যু হলেও এ সংক্রান্ত কোন তথ্য বা পরিসংখ্যান নেই জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে।

সদর হাসপাতালের একটি সূত্র জানায়, জনবল সংকটের কারনে ঝালকাঠি জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া মানুষের অধিকাংশের কোন টেষ্ট স্যাম্পল সংগ্রহ করা সম্ভব হচ্ছেনা। সদর হাসপাতালে মাত্র একজন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নমুনা সংগ্রহের দায়িত্ব পালন করায় এখোন করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য নাম নিবন্ধনের মাধ্যমে সিরিয়াল দিয়ে ৫/৭দিন অপেক্ষা করতে হচ্ছে। বর্তমানে সদর হাসপাতালে করোনা শনাক্তকরনে প্রতিদিন সর্বচ্চো ৫ থেকে ৬জনের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। জেলায় ‘পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ অপ্রতুল’ হওয়ায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আশংকাজনক ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র মতব্যক্ত করেছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যানুযায়ী, জেলার ৪টি উপজেলার মধ্যে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সদর উপজেলায় ১২৫ জন, নলছিটি উপজেলায় ৯৬ জন, রাজাপুর উপজেলায় ১০০ জন ও কাঁঠালিয়া উপজেলায় ৩৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। জেলায় এ পর্যন্ত ২০৮১ জনের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা পাঠানে হয়েছে। এরমধ্যে অদ্য পর্যন্ত ১৮২৫ জনের রিপোর্ট পুওয়া গেছে। যার মধ্যে ৩৫৩ জনের রিপোর্ট পজেটিভ ও ১৫০৭ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে বলে সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবুয়াল হাসানের প্রদানকৃত তথ্যে জানাগেছে।

এ ব্যাপারে ঝালকাঠির ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. আবুয়াল হাসান বলেন, আমাদের জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে জনবলের সংকট রয়েছে। জেলার সদরে হাসপাতালে মাত্র একজন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নমুনা নিচ্ছেন। বাকী তিন উপজেলাতে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট না থাকায় অন্য বিভাগের লোক দিয়ে নমুনা নেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের দুজন মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টের করোনা পজিটিভ হওয়ায় আগের চেয়ে নমুনা সংগ্রহ কমে গেছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স