সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

টেকনাফে অপহৃত একজনকে হত্যা করেছে রোহিঙ্গারা
ডেক্স রিপোর্ট / ১৩২ ভিউ
সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১

রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা কক্সবাজারের টেকনাফে অপহৃত একজন স্থানীয় কৃষককে হত্যার প্রতিবাদে গ্রামবাসীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে। আজ শুক্রবার ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী নিজেদের নিরাপত্তা রক্ষার জন্য অবিলম্বে মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গাদের স্বদেশে পাঠিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছে।

রোহিঙ্গা সশস্ত্র গোষ্ঠি একজন বাংলাদেশি নিরীহ কৃষককে হত্যার পর সেই আস্তানার পাহাড় থেকেই বাংলাদেশের আইন শৃংখলা রক্ষাকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের গালাগাল দিচ্ছে। তারা হুমকি দিচ্ছে পুলিশি অভিযানের পাল্টা বদলা নেবে। এদিকে কৃষক হত্যার প্রতিবাদে টেকনাফের স্থানীয়রা রাস্তায় নেমে পড়েছে।

তারা এক্ষুনি রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফিরিয়ে দিতে দাবি জানিয়েছে। সেই সাথে সাগরে ভাসমান রোহিঙ্গাদের কোনোভাবেই বাংলাদেশে ঢুকতে না দিতেও স্থানীয়রা দাবি জানিয়েছেন।

একদল সশস্ত্র রোহিঙ্গা টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মিনাবাজার পশ্চিম পাড়ায় ক্ষেতের ফসল পাহারায় নিয়োজিত অবস্থায় ছয়জন স্থানীয় কৃষককে অপহরণ করে। রোহিঙ্গার দল নিজেদের আবদুল হাকিম ডাকাত বাহিনীর পরিচয় দিয়ে অপহরণের পর তাদের পশ্চিমের পাহাড়ে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে চালের বস্তা ও সিগারেটের বিনিমেয় তিনজনকে ছেড়ে দিলেও বাকি তিনজনকে আটকে রাখে।

এদিকে গতকাল সকাল থেকে টেকনাফ থানার পুলিশ পাহাড়ের সশস্ত্র রোহিঙ্গার ডেরায় অভিযান পরিচালনা করে। পুলিশের সাথে স্থানীয় শতাধিক গ্রামবাসীও যোগ দেয়। এ সময় রোহিঙ্গারা পালিয়ে যায়। অভিযানের সময় রোহিঙ্গাদের আস্তানায় গরুর মাংশ রান্না করা ডেকচিও পাওয়া যায়।

সশস্ত্র রোহিঙ্গারা পাহাড়ে ঘর বানিয়ে সেখানে দামি কার্পেট বিছানা পেতেই আস্তানা গেড়ে বসে। পুলিশ পাহাড়ের রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের আস্তানা গুড়িয়ে দেয়। পুলিশ ও গ্রামবাসী পাহাড়ের আস্তানা গুড়িয়ে চলে আসে। বৃহস্পতিবার রাতে আবদুল হাকিম ডাকাত পরিচয়ে অপহৃত কৃষক শাহেদের মাকে মোবাইল করে অভিযানের জন্য ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায়।

এমনকি মোবাইলে পুলিশ ও গ্রামাবাসীকে হত্যার হুমকি দেয়। এরপর আজ ভোররাতে অপহৃত তিনজনের একজনকে মাথায় গুলি মেরে হত্যা করে। হত্যার শিকার কৃষকের নাম আকতারুল্লাহ (২৫)। গ্রামবাসীর সহযোগিতায় শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে টেকনাফের উনচিপ্রাং পাহাড়ি এলাকা নিহত কৃষকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা অপহৃত অপর দুই কৃষকের মুক্তির জন্য ২০ লাখ দাবি করে।

সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানান, একটি লাশ পড়ে থাকার খবর পেয়ে একদল পুলিশকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে।

টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুদ্দিন জানিয়েছেন, গত মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে হোয়াইক্যং মিনাবাজার পশ্চিম ঘোনার ক্ষেতখামার থেকে সশস্ত্র রোহিঙ্গারা পাহাড় থেকে নেমে এসে ছয়জন গ্রামবাসীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

তারা হলেন, কৃষক আবুল হাশেম ও তার দুই পুত্র জামাল এবং রিয়াজুদ্দিন, স্থানীয় বাসিন্দা মোহাম্মদ হোসেনের পুত্র শাহেদ (২৫), মৌলভী আবুল কাছিমের পুত্র আকতারুল্লাহ (২৪) ও মৃত মোহাম্মদ কাশেমের পুত্র ইদ্রিসকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

অপহরণকারী রোহিঙ্গারা টেকনাফের পাহাড়ে অবস্থানরত সশস্ত্র রোহিঙ্গা আবদুল হাকিম ডাকাত বাহিনীর সদস্য বলে অপহৃতরা মনে করছেন। ক্ষেত পাহারা দেয়াকালীন সময়ে পাহাড় থেকে রোহিঙ্গা সশস্ত্র দলটি নেমেই মুহূর্তে মধ্যে ওই গ্রামবাসীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Shares