সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

তিতাসে স্ট্যাম্প জালিয়াতির মাধ্যমে জায়গা দখলের চেষ্টা

তৌফিকুল ইসলাম, তিতাস(কুমিল্লা)প্রতিনিধি

কুমিল্লার তিতাসে ভূয়া স্ট্যাম্প তৈরী করে অন্যের জায়গা দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে একটি কুচক্রি মহলের বিরুদ্ধে।
উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের চান নাগেরচর গ্রামের মৃত কাজি তমিজ উদ্দিনের ছেলে আমির হোসেন এ অভিযোগ করেন।

তিনি জানান, উপজেলার চান নাগেরচর গ্রামের মৃত আফাজ উদ্দিন উরফে কাইল্যা মিয়ার মেয়ে ও মিলন ড্রাইভারের স্ত্রী মোসাম্মৎ হোসনেয়ারা বেগমের নিকট থেকে ৪লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা গ্রহণ করি ৩ জন স্বাক্ষির উপস্থিতিতে। বিনিময়ে তফসিল ভুক্ত ১৩৫১ নং সাব কবলা দলিলের ৮৫ নং চান নাগেরচর মৌজার হালে ডি পি ২৮ নং রায়তি খতিয়ানভূক্ত সাবেক ১৮৪ হালে ১৭৪ শতকের অন্দরে ২১ শতক ভুমির মধ্যে সাড়ে ১০ শতক জমি বিক্রির উদ্দেশ্যে একটি কাগজ সম্পাদন করি।

তিনি আরো জানায়, আমি আমার জমিটি খারিজ করতে না পারায় উক্ত জমি হোসনেয়ারাকে রেজিষ্ট্রি করে দিতে পারিনাই। তবে মাটি ভরাট করে উক্ত জায়গায় বসত করার মৌখিক অনুমতি দিয়েছি।

এদিকে হোসেনেয়ারা বেগম সে তার ছোট বোন জোসনা অন্যের বাড়িতে ভাড়া থাকে বিধায় তাকে ও বোন জামাই আলী আজগরকে নিয়েই এক সঙ্গে বসত করতে থাকে। এরই মধ্যে গত কয়েকদিন পূর্বে ফেসবুকে মিথ্যা খবর প্রচার হয়, আমরা নাকি তাদেরকে ঘর তুলতে দিচ্ছি না। এমন খবর পেয়ে বিষয়টি নিয়ে কথা হলে জানতে পারি আমার সাড়ে ১০ শতক জমির সাথে আমার ছোট ভাই লন্ডন প্রবাসী জাকির হোসেনের সাড়ে ১০ শতক জমিও দখল করার উদ্দেশ্যে একটি ভূয়া দলিল সৃজন করে।

হোসেনেয়ারা বেগমকে না জানিয়ে তার বোন জামাই আজগর আলীর নামে এই কুকাম করে। আমি এই জালিয়াতির বিচার চেয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

নিজের নামে স্ট্যাম্প বোন জামাইর নামে কিভাবে হলো জানতে চাইলে হোসেনেয়া বেগম জানান, আমি একদিন সন্ধ্যায় আবু, হারুন ও হাসেমকে নিয়ে ৪লাখ ৫০ হাজার টাকা হোসেন ভাইকে দিয়েছি। সে বলেছে আমাকে জমি দিবে না হলে টাকা ফেরৎ দিবে। এ জন্য একটি কাগজ কইরা রাখছি। আমার কোন সন্তানাধি না থাকায় সেই কাগজ আমার বোন জামাইর কাছে রাখছিলাম। আমারে কিছু না জানাইয়াই এহন সে নাকি সাড়ে ১০ শতক জমির জায়গায় ২১শতক জমি তার নামে দলিল কইরাফালাইছে।

অভিযুক্ত আজগর আলী সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে চলে গেলেও পাওয়া যায় তার স্ত্রী জোসনা বেগমকে। সে প্রথমে আবু, হারুন ও হাসেমকে নিয়ে নিজের হাতে সাড়ে ৪লাখ টাকা আমির হোসেনকে দিয়েছে বলে চান নাগেরচর গ্রামের মোবারক মিয়ার সামনে স্বিকার করে। পরক্ষণে আবু, হারুনের উপস্থিতিতে সরাসরি অস্বীকার করে এবং বোল পাল্টে নিজের মেয়ের টাকায় পুরো ২১ শতক জমি কিনেছে বলেই দাবি করে। তবে স্বাক্ষিরা সাফ জানায় হোসনেয়ারা বেগমের কথায় আমির হোসেনের বাড়িতে গিয়েছে এবং একটি মাত্র কাগজে স্বাক্ষর দিয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, বায়না করার সময় জমির মূল্য কম ছিলো। বর্তমানে জমির পাশ দিয়ে রাস্তা নির্মান হওয়ায় জমির দাম বেড়ে গেছে। এ জন্য একটা কুচক্রি মহলের কুপরামর্শে জোসনার স্বামী আজগর আলী জালিয়াতি করে ফায়দা নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। আমির হোসেন এখনো সে জমির বদলে টাকা নিয়েছে তা স্বীকার করে।

আমির হোসেন জানায়, আমিতো এখনো স্বীকার করি, হোসনেরাকে মাটি ভরাট করে থাকার মৌখিক অনুমতি দিয়েছি। কিন্তু তার ছোট বোন জামাই আজগর আলী জালিয়াত করে আমার প্রবাসী ভাইয়ের জায়গাও স্ট্যাম্প লিখে নিয়ে দখলের চেষ্টা করছে।
তাকে কে এই কুপরামর্শ দিছে খোঁজে বের করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে হবে। তাকে দেখে যেনো আর কোন মানুষ এমন অপরাধ করার সাহস না পায়।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স