শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
প্রকাশ্য দিবালোকে সাভার ও আশুলিয়ার ২ যুবক খুন যৌতুকের বলি আনজিলা আক্তার! জামালপুরে ভ্যান চালক শিশু সম্পার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানেও বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ জাল পাঁচ হরিণ শিকারী আটক করেছে বন বিভাগ জলবদ্ধতা নিরসনে দুই চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে অবৈধ নেটপাটা অপসারণ অপরাধ ডটকমের সাভার প্রতিনিধির মায়ের ইন্তেকাল বগুড়া পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী জনপ্রিয়তার শীর্ষে আমিনুল ফরিদ চাঁপাইনবাবগঞ্জে রেজিস্ট্রি অফিসের অনিয়মের বিরুদ্ধে সনাসের মানববন্ধন মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সাভারে যুবলীগের বিক্ষোভ মিছিল

বখাটেদের হাতে দুই ভাই নির্যাতনের শিকার

মোঃ রায়হান ইন্দুরকানী, পিরোজপুর

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে কর্মস্থল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাড়িতে এসে বখাটেদের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছে পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার সেউতিবাড়িয়া গ্রামের দুই ভাই।

উপজেলার সেউতিবাড়িয়া এলাকার আঃ লতিফ গাজীর ছেলে মাসুম গাজী (১৯) ও তরিকুল (১৬) ঢাকায় কর্মরত ছিলেন। এই মহামারি করোনা ভাইরাসের কারনে দেশ লকডাউন পরিস্থিতিতে বাড়িতে এসেছিল দুই ভাই। বাড়িতে এসে দুই ভাই পার্শ্ববর্তী চরহোগলাবুনিয়া এলাকায় তাদের ফুপু বাড়ি যাওয়ার পথে ওই এলাকার বখাটে জনি হাওলাদার (২০) ও তার সহকর্মীরা দুই ভাইকে পথরোধ করে পকেটে যা যা আছে বের করতে বলে। দুই ভাইয়ের পকেটে তখন ৯০০/টাকা ও মোবাইল ফোন ছিলো, বের করতে না চাইলে প্রথমে জনি এবং তার সহকর্মীরা দুই ভাইকে মারধর শুরু করে। এক পর্যায়ে ওদের কাছে থাকা একটি স্মার্টফোন এবং দুটি নরমাল ফোন এবং সঙ্গে থাকা নগদ ৯০০ টাকা নিয়ে ওদেরকে আটকে রাখে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে মাসুম গাজী বলেন-আমরা মোবাইল দিতে না চাইলে আমাকে ও আমার ভাই তরিকুলকে লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে, কেচি দিয়ে চুল কেটে দিয়েছে, হাতে ও পায়ে খেজুর কাটা ঢুকিয়ে গাছের সাথে বেঁধে রাখার কারনে অসুস্থ হয়ে পরি, যে কারণে ফুফুর বাড়ি আর যেতে পারিনি।

এবিষয়টি মাসুম ও তারিকুলের বাড়ির লোকজন জানতে পেরে, তাদের কে উদ্ধার করতে গেলে তাদের কাছে বখাটে জনি ও তার লোকজন ২০ হাজার টাকা দাবি করে। পরে ৫ হাজার টাকা দিয়ে মাসুম ও তরিকুলকে তার পরিবারের লোকজন নিয়ে আসে।
পরবর্তীতে উক্ত বিষয়ে ভুক্তভোগির পিতা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন।সাংবদিকগণ বখাটে জনির সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি ওদেরকে ধরিনি এলাকার অন্য লোকজনে ধরেছিল কিন্তু আমি সমাধান করে দিয়েছি। মোবাইল ফোনের বিষয় জানতে চাইলে বলেন, ওদের কাছে ২ টা ফোন ছিলো একটা দিয়ে দিছি আর একটা এলাকার এক লোকের কাছে আছে এবং টাকার বিষয় জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান।

এবিষয় এলাকায় খোজ নিয়ে জানা যায় চরহোগলাবুনিয়া গ্রামের মো: আলম হাওলাদারের ছেলে জনি হাওলাদার (২০) সে এলাকার বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রয়েছে এবং বর্তমান এমপিকে আত্মিয় পরিচয় দিয়ে চলাফেরা করে।

এবিষয়ে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা আইন সহায়াতা কেন্দ্র আসক ফাউন্ডেশন বরিশাল বিভাগের সভাপতি মো. নুরুল্লাহ আল আমিন বলেন, ভুক্তভোগীর পিতা উক্ত বিষয় আমার কাছে একটি লিখিত আবেদন করেছেন।আবেদনের প্রেক্ষিতে আমি জনিকে ফোন করলে জনি বলে আমি সন্ধার মধ্যে স্থানিয় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মো: হেমায়েত সাহেবের কাছে মোবাইল ও টাকা জমা দিয়ে দেব। তিনি তাদের কাছে বুঝিয়ে দিবেন।

এবিষয়ে হোগলাবুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আকরাম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, তার এলাকায় করোনা ভাইরাসের রোগী মারা যাওয়ার কথা বলে ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের সাথে কথা বলার জন্য বলেন।

ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি।
উল্লেখ্য বখাটে জনি ইউপি সদস্য রুহুল আমিনের ভাইয়ের ছেলে। দলিয় প্রভাব খাটিয়ে নানা রকম অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে এই জনি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ