সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন

বরগুনায় আশ্রয় কেন্দ্র প্রভাবশালীর গোয়াল ঘর!

মো.মিজানুর রহমান নাদিম, বরগুনা প্রতিনিধি

বরগুনার তালতলী উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়ন এ’র ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রটি গোয়াল ও শুটকির ঘর হিসাবে ব্যবহার করছে স্থানীয় এক প্রভাবশালী মহল।

জানা গেছে,উপজেলার ৭নং সোনাকাটা ইউনিয়নের ছোটআমখোলা গ্রামের একটি মাত্র ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র। সেই ভয়াল ২০০৭সালের ১৫নভেম্বরের ঘূর্ণিঝড় সিডরের পরে ওই আশ্রয় কেন্দ্রটি ২০০৮ সালের দিকে ব্রাক নামের এনজিও সংস্থা আশ্রয় কেন্দ্রটি নির্মাণ করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রটির চারপাশে ময়লা আর্বজনায় ভরপুর হয়ে আছে।একটি প্রভাবশালী মহল অবাধে গরু লালন পালন করছে। আশ্রয় কেন্দ্রটি গোয়াল ঘরে পরিণত হয়েছে এবং আশপাশ ঝুড়েঁ গো-খাদ্য হিসাবে খড়কুড়ো রাখা হয়েছে।আশ্রয় কেন্দ্রের মধ্যে শুটকি শুকানোর কাজে ব্যবহার করা হয়।

স্থানীয়রা জানান,দূর্যোগকালীন সময় সাধারণ লোকজন আশ্রয় নিতে এই ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রগুলো স্থাপন করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের  জন্য আমরা বাসা থেকে বের হই না।সিপিবি কর্মীরা বলছে আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য এবং সামাজিক দুরুত্ব বজায় রাখতে।কিন্তু একটি প্রভাবশালী মহল আশ্রয় কেন্দ্রটি ব্যবহারের অনুপযোগী করে ফেলছে।

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় নাগরিকদের সুবিধা কথা চিন্তা করে বিদেশীদের অনুদানে এত টাকা ব্যয়ে এসব অবকাঠামো তৈরি করে গোয়াল ও শুটকির ঘর বানিয়ে পরিবেশ নষ্ট করছে। আশ্রয় কেন্দ্রের পরিবেশ এ রকম থাকলে আমরা কোথায় গিয়ে আশ্রয় নিব।
এ রকম সাইক্লোন সেন্টার গুলোর অসাধু লোকের কবল থেকে রক্ষা করার জোর দাবী জানান সংশ্লিষ্টরা।

উপজেলার সিপিবি টিম লিডার মো.আলতাফ হাং বলেন,আমি বিষয়টি জেনেছি তবে কেউ যদি গোয়াল ঘর বা শুটকি শুকানোর কাজে আশ্রয়টি ব্যবহার করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইননুগ ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ