সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন

বসতবাড়ীতে মুরগীর খামার, পরিবেশ বিপর্যয়

চাঁদপুর সংবাদদাতা

সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ হলেও মানুষের আচরণ ও অবহেলার কারণে প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে তার চারপাশের পরিবেশ। সেই সাথে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য। বাংলাদেশে পরিবেশের অবক্ষয় ও দূষণ একটি বড় সমস্যা। উপর্যুপরি বন্যা, খরা ও ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছাস প্রভৃতি প্রাকৃতিক দুর্যোগ জলবায়ু ও আবহাওয়ার অস্থিরতাসহ অন্যান্য পরিবেশগত সমস্যা এখন মানুষের নিত্যসঙ্গী। এসবের মূলে মানুষের কর্মকাণ্ডই প্রধানত দায়ী।

মানুষের জ্ঞানহীনতার কারনে প্রতিনিয়তই কোন না কোন স্থানে পরিবেশের বিপর্যয় হয়ে থাকে। এমন একটি চিত্র চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার ৬নং পূর্ব বড়কুল ইউনিনের কুমার বাড়ীতে।

পরিবেশের চরম বিপর্যয় হচ্ছে এমন অভিযোগ এনে স্থানীয় একজন বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে ও হাজীগঞ্জ থানা লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

তথ্য সুত্রে জানাযায়, হাজীগঞ্জ উপজেলার ৬নং বড়কুল ইউনিয়নের রায়চোঁ বাজার সংলগ্ন কুমার বাড়ীর নেয়ামত উল্যার ছেলে মাহবুব আলম তার নিজ বিল্ডিং ও দক্ষিন পার্শে ঘরে ভিতরে মুরগীর খামার গড়ে তুলে। এ নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বাড়ীর লোক জন তাকে বাধা দিলেও সে কোন কর্ণপাত না করেই তার খামার চালিয়ে যায়। তথ্য সুত্রে আরো জানাযায়, কোন প্রকার পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়াও মাহবুব আলম বসতবাড়ীর ভিতরে খামার গড়ে তুলে।

বর্তমানে মাহবুব আলমের খামারে প্রায় শহস্রাধিক মুরগী রয়েছে। তার বর্জ অপসার না করার কারনে বাড়ী ও আসপাশের বাড়ীতের লোকজন দূর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছে। এমন কি পরিবেশের চরম বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।

গত মার্চ মাসের শুরুতে পরিবেশ বিপর্যয় নিয়ে কুমার বাড়ীর বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. দেলোয়ার হোসেন সিরাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরবর্তীতে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. জুলফিকার আলী তদন্ত করে গত ১৫ মার্চ প্রতিবেদন দাখিল করে। প্রতিবেদনে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে মাহবুব আলমকে মুরগীর খামারটি বন্ধ রাখার জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু মাহবুব আলম তা কর্ণপাত না করেই বসতবাড়ীর ভিতরে খামারটি চালিয়ে যাচ্ছে। এতে করে চমরভাবে পরেবেশের বিপর্যয় দেখা দিয়েছে।

পরবর্তীতে গত ১৫ এপ্রিল কুমারবাড়ীর দেলোয়ার হোসেন সিরাজীর ছেলে, মেনাপুর পীর বাদশা মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মো. রবিউল আউয়াল বিপ্লব হাজীগঞ্জ থানায় এর সাধারণ ডায়রি করে।

এ নিয়ে হাজীগঞ্জ থানার এএসআই মো. মুজাম্মেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে মাহবুব আলমকে তার মুরগীর খামারটি বন্ধ করার জন্য বলা হয়।

বসতবাড়ীতে মুরগীর খামার বিষয়ে মাহবুব আলম বলেন, আমি আমার নিজ বিল্ডিংয়ের উপরে এবং নিজ জায়গাতে মুরগীর খামার করেছি। এতে কারো কোন ক্ষতি হবে বলে আমি মনে করছি না।

হাজীগঞ্জ থানার এএসআই মো. মুজাম্মেল জানান, আমি অফিসার ইনচার্জের নির্দেশে ঘটনাস্থল গিয়ে মাহবুব আলমকে খামারটি বন্ধ করার কথা বলে আসছি। তা না মানলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স