শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০১:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রপ্তানি আয়ের অন্যতম উৎস হবে আম: কৃষিমন্ত্রী খাবার না থাকলে আমাকে জানান, আমি বাড়ি বাড়ি খাবার পৌছে দিব: এমপি আনার অমুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনের অভিযোগ স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কমলগঞ্জে হিন্দু ছাত্র পরিষদের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ময়মন‌সিং‌হের শম্ভুগ‌ঞ্জে প্রায় শতা‌ধিক দোকানে ধর্মঘট শেরপুরের শ্রীবরদীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার সাংসদ কন্যা ডরিন এর নেতৃত্বে রোজা রেখেও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এক কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ করোনা সঙ্কটে আবারো অসহায় মানুষের পাশে সাংসদ কন্যা ডরিন সাভারে দুই নারী ধর্ষণের শিকার, আটক ২ ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে তিস্তায় ডুবে একজনের মৃত্যু

রাজবাড়ীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপরিকল্পিত হড়াই নদী খননে নিঃস্ব পরিবার !

মোঃ কবির হোসেন, রাজবাড়ী

রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউপির খোরদ্দরপুর গ্রামে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপরিকল্পিত খননে শেষ সম্বল বসতভিটা টুকু হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে খোরদ্দরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিল্লাল শেখ ও তার পরিবার । শেষ সম্বল টুকু হারিয়ে কোথাও যাওয়ার ঠাই নেই তার। অন্যের বাড়ীতে কাজ করে কেনা ৯ শতাংশ জমি হড়াই নদীর অপরিকল্পিত খননে প্রায় বিলীন ।

জানাগেছে,  পানি উন্নয়ন বোর্ড রাজবাড়ীর অধীনে পাংশার ঠিকাদার রুহুল আমিন সাব ঠিকাদার মোহাম্মদ হোসেন এর মাধ্যমে দুইটি প্যাকেজে ১০ কিলোমিটার হড়াই নদী হড়াই রিভার প্রজেক্ট এর খনন কাজ সম্পন্ন করে। ১লা জানুয়ারি ২০১৯ সালে কাজটি শুরু করে ২০শে এপ্রিল ২০২০ কাজটি শেষ করে।

সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা গেছে বিল্লাল হোসেন ও তার পরিবারের ৯ শতাংশ জমির উপর যে বসতভিটা রয়েছে তা হড়াই নদীর ভাঙনে বসত ঘরটির তিন ভাগের এক ভাগ নদী গর্ভে চলে গেছে। ছেলে সন্তান সহ পাশেই গাছের নিচে পাটকাঠির বেড়া ও টিনের চালা দিয়ে কোন মত পোষা ছাগল, গরু হাঁসমুরগি নিয়ে গাদাগাদি অবস্থায় রয়েছে।

শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে নিঃস্ব বিল্লাল শেখ দিশেহারা হয়ে পরেছে। কথা হলে বিল্লাল শেখ জানান, অন্যের বাড়ীতে কাজ করে জীবনের সকল উপার্জন দিয়ে ৯ শতাংশ জমি কিনে এখানে বসতভিটা করেছি। হড়াই নদীর খনন কাজ করার সময় কাজের সাব ঠিকাদার মোহাম্মদ হোসেন আমাদের ভিটা পেচিয়ে ভেকু দিয়ে মাটি কেটে সেই মাটি অন্য যায়গায় বিক্রি করে আমার এ সর্বনাশ করেছে। আমি এখন কোথায় যাবো কার কাছে যাবো। অনেকবার অনুরোধ করেছি আমার ভিটার পাশ ঘেষে যেন মাটি না কাটে কিন্তু সে আমার কোন কথাই শোনে নাই।

এ বিষয়ে এলাকাবাসীর সাথে কথা হলে স্থানীয় অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক আঃ মজিদ জানান, এখানে দরিদ্র দিনমজুর বিল্লাল শেখ এর বাড়ী সহ হড়াই নদীর অপরিকল্পিত খননের ফলে সরকারি রাস্তা ও কৃষি জমি ভেঙ্গে হড়াই নদীতে চলে যাচ্ছে । কাজ চলাকালীন স্থানীয়রা কাজের বাধাও দিয়েছিলো কিন্তু কোন লাভ হয় নাই।

স্থানীয় কৃষক টাবলু মোল্লা জানান, আমাদের কৃষি জমির পাশ ঘেষে যখন মাটি কাটছিলো তখন আমি অনেকবার স্থানীয়দের নিয়ে অনুরোধ করেছিলাম এভাবে মাটি না কাটার জন্য। কিন্তু কাজের শেষ হওয়ার দুই মাস পরেই আমাদের কৃষি জমি হড়াই নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে। এ নদীতে আমরা ধানের চারা বপন করতাম । সে ধানের চারা বেলগাছি বাজারে নিয়ে গেলেই বিক্রি হয়ে যেত। কিন্তু এ নদী এত গভীর করে কেটেছে আমরা এখন আর ধানের চারা বপন করতে পারিনা।

বিল্লাল শেখের স্ত্রী হাজেরা খাতুন জানান, আমাদের একমাত্র সম্বল ৯ শতাংশ জমি । এখন সে জমিটুকু আমাদের বসতভিটা সহ হড়াই নদীতে বেশীরভাগ ভেঙ্গে চলে গেছে। সাপ পোকার ভয় নিয়ে রাতে গাছের নিচে পাটি বিছিয়ে ঘুমাই । টিউবওয়েল টিও ভেঙ্গে নদীতে চলে গেছে। বৃষ্টির পানি কলসে ধরে খেয়েছি। এখন আমরা কোথায় যাবো ,আমাদের যাবার কোন ঠিকানা আর নাই।

এ বিষয়ে স্থানীয় খানগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাহার হাসান তকদির জানান, হড়াই নদি যখন প্রথম খনন কাজ শুরু হয় অপরিকল্পিতভাবে তখন এলাকাবাসীর কিছু বাড়ী ও কৃষি জমি ভেঙ্গে যাওয়ায় এলাকাবাসী কাজের বাধা বাধা দেয়। আমি তখন সেখানে গিয়ে সরেজমিনে পরিদর্শন করি। দেখি ভিক্তভোগীদের কয়েকজন অন্যত্র গিয়ে বসবাস করছে ,এটা খুবই দুঃখজনক । আমি সহ স্থানীয়রা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছি কিন্তু তারা কোন ব্যাবস্থা গ্রহন করেন নাই। আমি একজন চেয়ারম্যান হিসেবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন জানাবো যেন তারা পেলাসাইটিং বসিয়ে বা অন্য কোন উপায়ে যেন ব্যাবস্থা গ্রহন করেন যাতে ভুক্তভোগীরা তাদের নিজস্ব যায়গায় বসবাস করতে পারে।

এ ব্যাপারে রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারি প্রোকৌশলী মোঃ শফিকুল ইসলাম শেখ জানান, সি এস রেকর্ড অনুযায়ী আমরা নদী খনন কাজ করেছি । সি এস রেকর্ড অনুযায়ী এখানে সরকারি রাস্তা বা বসতঘড় অনেকেরই পরে গেছে। আমরা আমাদের সরকারি যায়গায় নদী খনন করেছি। কারো কোন ক্ষতি সাধন হলে ক্ষতি পূরন দেওয়ার কোন এখতেয়ার আমাদের নেই।তবে এ বিষয়ে তিনি ভিডিওতে কোন সাক্ষাৎকার দিতে রাজী হননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স