রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৯:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাত্রী কালীন ডিউটিতে ডাক্তার না থাকার অভিযোগ

মাসুম বিল্লাহ শরণখোলা, বাগেরহাট

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাত্রীকালীন সময়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক না থাকার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার গোলবুনিয়া এলাকার বাসিন্দা এবং শরণখোলা উপজেলা প্রেসক্লাবের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক জনতা পত্রিকার শরণখোলা উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ মেহেদী হাসান মুন্সী এমন অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ১৫ ফেব্রæয়ারী (সোমবার) গভীর রাতে তার ৯ মাস বয়সী শিশু পূত্র মোঃ রেদওয়ানের হঠাৎ শ্বাসকষ্ট সহ খিঁচুনি শুরু হয়। পরে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে নিয়ে রাত আনুমানিক আড়াইটার সময় শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। এসময় হাসপাতালের জরুরী বিভাগে অবস্থানরত উপ-স্বাস্থ্য সহকারী বিপ্লব কুমারকে ঘুম থেকে ডেকে তোলেন এবং শিশুটির সমস্যার কথা জানিয়ে রাত্রিকালীন দায়িত্বপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার মোঃ আরিফুল ইসলাম রাকিবকে ডেকে আনার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু বিপ্লব ডাক্তারকে না ডেকে এবং শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি না করে কয়েকটি ঔষধ লিখে দিয়ে বলেন ডাক্তারের প্রয়োজন নেই এবার আপনারা বাসায় চলে যান। পরে আমি হাসপাতালের কর্পোরেট নম্বর সহ ডাক্তার রাকিবের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে প্রায় ১০/১২ বার ফোন করি কিন্তু তিনি তা রিসিভ না করায় হতাশ হয়ে পড়ি। পরবর্তীতে রেদয়ানকে নিয়ে বাসায় চলে যাই এবং ভোর ৫টার সময় পুনঃরায় ছেলেদের শ্বাসকষ্ট ও খিচুনি শুরু হয়। পরে দ্বিতীয় দফায় ছেলেটিকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপ-স্বাস্থ্য সহকারী বিপ্লব কুমার বলেন, রাতে তো হাসপাতালে কত রোগী আসে। এরকম কোন রোগী আসছিল কিনা তা আমার মনে পড়ছেনা।

অপরদিকে, শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মোঃ আরিফুল ইসলাম রাকিব জানান, আমার কাছে কোন ফোন আসেনি। এছাড়া জরুরী বিভাগে কর্মরত উপ-স্বাস্থ্য সহকারী বিপ্লব কুমারও বিষয়টি আমাকে অবগত করেননি।

এছাড়া শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার ফরিদা ইয়াছমিন জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে, খোঁজ খবর নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্তদের কোন গাফিলতি পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স