বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শেকৃবিতে রেজিস্ট্রারকে চলতি ভিসির দ্বায়িত্ব দেওয়ায় বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নিন্দা তাহিরপুরে অজ্ঞাত বৃদ্ধার ঠিকানা খুঁজছে এলাকাবাসী নিবন্ধন না থাকায় সাভারে বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা আশুলিয়ায় স্কুল পড়ুয়া কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা, সাভারে ২ জনের লাশ উদ্ধার পাটগ্রামে ভারতীয় শাড়ী ও কসমেটিক্স সহ আটক ২ নৌকার মাঝি মোহাম্মদ আলী, ধানের শীষ হাতে সাইফুল আলম বরগুনায় গণপূর্ত বিভাগের জলাশয় অবৈধভাবে দখল করে মাছ চাষ বগুড়ায় ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচার মৃত্যু ঘোড়াঘাটে বালু বোঝাই ট্রাকে ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ২ সাভারে টায়ার পুড়িয়ে পরিবেশ দূষণ, ৫টি কারখানা গুড়িয়ে দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত

শৌখিন ঘুড়িওয়ালা !

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

শখের বশে ঘুড়ি বানাতে বানাতে এখন নেশায় পরিনত হয়েছে। প্রতিদিন একেক রকমের ঘুড়ি বানানো আর সেই ঘুড়িকে আকাশে উড়িয়ে ঘুড়ির পানে চেয়ে থেকে সময় কাটে শৌখিন ঘূড়িওয়ালা নাম তার মামুন।

রামকান্তপুর গ্রামের ২২ বছরের যুবক। নেশাই তার ঘুড়িকে আকাশের মধ্যে উড়িয়ে আকাশ ছোয়া। মন তার আকাশের ঘুড়ির সাথেই দোল খায় বাতাসে । প্রতিদিন তার কাছে ঘুড়ি দেখতে ভীড় জমায় পাড়ার ছেলেরা। কৌড়া আর ঢাপুস ঘুড়ি বিভিন্ন রঙের কাগজে বানিয়ে রোদেলা আকাশে উড়িয়ে মুক্ত মনে বসে ভাবে ঘুড়ির সাথে যদি সে উড়তে পারতো।

শুধু দিনেই নয় রাতের বেলায়ও এই ঘুড়ি গুলোতে অত্যাধুনিকভাবে মোবাইলের ব্যাটারি ব্যাবহার করে ছোট ছোট লাল নীল, সবুজ, রঙের বাতি লাগিয়ে অনেক রাত ধরে আকাশে ঘুড়ি উড়িয়ে বসে থাকে।
পাড়ার অনেক ছেলেরাও বানিয়ে নেয় তার কাছ থেকে বিভিন্ন রকমের ঘুড়ি। আর একেক টা ঘুড়ির দামও প্রায় ৫শ থেকে ১হাজার টাকা বিক্রি করে।প্রতিযোগীতা করে কে কত উপড়ে ঘুড়ি আকাশের বুকে ওড়াতে পারে। রাতে প্রায় ১০-১৫টি ঘুড়ি নিয়ে এলাকার ছেলেরা আকাশে উড়িয়ে বসে দেখে ঘুড়ির ওড়ার দৃশ্য । লাল নীল সবুজ রঙের ঘুড়ি দেখতে পাড়ার মহিলা পুরুষ ছোট বাচ্চারা তাকিয়ে থাকে আকাশে। ঘুড়ির সাথে বাতি তার সাথে যুক্ত করা হয় বেনার শব্দ । অত্যান্ত মনোমুগ্ধকর আকাশের দিকে চেয়ে থাকতে ভালোই লাগে । মনে হয় বড় বড় তারা না হয় এরোপ্লেন। কিন্তু হটাত বৃষ্টির আভাষ দেখা দিলে দ্রুত লাটাইয়ের সুতা গোছাতে ব্যাস্ত হয়ে পরে সবাই।

মামুন জানায়, এই ঘুড়ির অন্যতম উপকরণ বাশ। বাশের বাতা চেচে শুক্ষ করে পাতলা করে কৌড়া ও ঢাবুস ঘুড়ির ফ্রেম প্রথমে বানানো হয়। এরপর রোদে শুঁকিয়ে তার উপর কাগজের বা কাপড়ের ছাউনি দিয়ে বানানো হয় এই ঘুড়ি। ঘুড়ি বানানো আমার শখ। কিন্তু এখন নেশা হয়ে গেছে ।আর এলাকার ছেলেরা প্রতিদিনই আসে তাদের একটা ঘুড়ি বানিয়ে দিতে । রাতে বাশের বাতা চেচে ১০-১১টা পর্যন্ত কাজ করলে একটা ঘুড়ি বানানো যায়। বড় ঘুড়ি প্রায় ৫শ থেকে ১হাজার টাকাও বিক্রি হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ