শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৩:১৯ অপরাহ্ন

সাভার পৌর নির্বাচন: বিপুল ভোটে ব্যবধানে জয় পেলেন নৌকার মাঝি গনি

মো.শামীম হোসেন সাভার ( ঢাকা) প্রতিনিধি

দুই একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে সাভার পৌরসভা নির্বাচন। অর্ধলক্ষ ভোটে ব্যবধানে টানা দ্বিতীয় বারের মত মেয়র পদে বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী হাজী মো: আব্দুল গনি। এবার সাভার পৌর নির্বাচনে মোট ভোটার ১ লক্ষ ৮৮ হাজার ৮৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৪ হাজার ৫শ ৮৭ জন ও মহিলা ৯৩ হাজার ৫শ ১ জন।

রবিবার দুপুরে সাভার সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের হলরুমে রিটার্নিং অফিসার মুনীর হোসাইন খান পৌর নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন।

শনিবার সকাল ৮ টা থেকে শুরু হয়ে মোট ৮৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহন চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত। এতে মেয়র পদে আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও ইসলামী আন্দলনের মোট তিন প্রার্থী প্রতিদন্ধীতা করেছেন। এছাড়াও পৌর এলাকার নয়টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৪০ জন ও মহিলা সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে মোট ৯ জন প্রতিদন্ধিতা করেন। এরমধ্যে ২ নং ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নজরুল ইসলাম মানিক মোল্লা বিজয়ী হয়।

নৌকা প্রতিক নিয়ে আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র হাজী মো: আব্দুল গনি পেয়েছেন ৫৬ হাজার ৮শ ৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি আলহাজ্ব মো: রেফাত উল্লাহ্ ধানের শীর্ষ প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৩শ ৩০ ভোট ও হাত পাখা প্রতিক নিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশর মোশারফ হোসেন পেয়েছেন ৯শ ৯৪ ভোট।

নির্বাচনী এলাকায় বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে প্রতিটি কেন্দ্রে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। বিজিবির টহল লক্ষ করা গিয়েছে। এছাড়াও মাঠে ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর কয়েকটি টিম। শুক্রবার রাত ১২টা থেকে রবিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনি এলাকায় ট্রাক ও পিকআপ চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন ঢাকা জেলা প্রশাসন। এ ছাড়া মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

কেন্দ্র গুলোতে সকাল ৮টার দিকে ভোট গ্রহন শুরু হয় এ সময় ভোটারের উপস্থিতি কম দেখা গেলেও দুপুরের পর থেকে কেন্দ্রে গুলোতে ভোটারের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে। তবে এবারই প্রথম ইলেক্ট্রনিক্স ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ভোট গ্রহন হওয়ায় ভোট প্রয়োগে বিপাকে পড়েছে অনেকে। উৎসাহ নিয়ে ভোট দিতে গেলেও কেউ কেউ ভোট দিতে পারেনি। কিছু কিছু কেন্দ্রে ভোটাররা অভিযোগ করেছেন ভোট কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রে প্রবেশ করলেও পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেনি তারা। ভোট হয়ে গিয়েছে বলে তাদেরকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

\সকালে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটারদের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানতে চেয়ে ভিডিও ধারণ করতে গেলে বাংলা নিউজ এর সাংবাদিক সাগর ফরাজীর মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। পরে ধামরাই থানার পরিদর্শক (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা ফোন ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করে দেন বলে জানা গেছে। এ ছাড়াও পৌর এলাকার ১ নং ওয়ার্ডের বাড্ডা, স্বর্নকলি ও জামসিং এলাকায় ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে কউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে বাক-বিতন্ডার ঘটনা ঘটে এবং এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে।

শনিবার দুপুরের পরে রেডিও কলোনী ভোট কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, কেন্দ্রের বাহিরে লোক সমাগম থাকলেও ভোটারের তেমন উপস্থিতি ছিল না। ভোট দিতে আসা এক মহিলা ভোটার অভিযোগ করে বলেন, আমি ভোট দিতে গিয়ে ছিলাম কিন্তু অমাকে ভোট দিতে দেওয়া হয়নি। আমার ভোট নাকি দেওয়া হয়ে গেছে। অপর দিকে রাজাশন প্রাইমারি স্কুল কেন্দ্রে ভোটারদের সরব উপস্থিতি লক্ষ করা গিয়েছে। রেহেনা নামের এক নতুন ভোটার বলেন, প্রথম বার ইভিএম মেশিনে ভোট দিতে পেরে ভালো লাগছে। আমি ভোট দিতে পেরেছি কেউ বাধা দেয়নি। ভোটের সুষ্ঠ পরিবেশ রয়েছে।

এদিকে সাভার পৌরসভা নির্বাচন পরিদর্শন করেন জেষ্ঠ্য নির্বাচন কমিশনার মাহাবুব তালুকদার। এ সময় তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ভোটারের উপস্থিতি আমার কাছে আশাবাঞ্জক নয়। সরকার ও বিরোধীদল- সকলের যদি পোলিং এজেন্ট ও পোষ্টার দেখতাম তাহলে আমি আশাবাদী হতাম।

ভোটে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী আলহাজ্ব মো: রেফাত উল্লাহ্। তিনি বলেন, আমার এজেন্টদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা তাদেরকে বাধা দিয়েছেন। সব কেন্দ্রে আমি এজেন্ট দিয়ে ছিলাম। সকালে দুই একজন প্রবেশ করলেও তাদেরকে বের করে দেওয়া হয়েছে। তবে অনিয়মের অভিযোগ অস্বিকার করে আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী বলেন, সুষ্ঠ ভোট হয়েছে কোথাও কোন বাধা দেওয়া হয়নি। ভোটাররা উৎসাহ নিয়ে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিয়েছেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স