শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গাজীপুর মহানগর ২২ নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনা সভা গাজীপুর মহানগরের ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুস সোবাহান সকলের দোয়া চায় ব্যাংকে ঋণ থাকা অবস্থায় ব্যবসায়ীর মৃত্যু: ৯ বছর পর চাপে ভুক্তভোগী পরিবার মাগুরায় ৮ দিন পর যুবকের মস্তকবিহীন লাশের মাথা ও পা উদ্ধার গাজীপুরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল কলেজ খোলার জন্য মানববন্ধন। মাগুরায় পরিত্যক্ত পুকুরে মিললো যুবকের টুকরো টুকরো লাশ বশেমুরবিপ্রবিতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ, স্বেচ্ছায় অব্যহতি গাজীপুরে ভোগরা বাইপাসে স্ট্রোকে আম বিক্রেতার মৃত্যু গাজীপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় গার্মেন্টস শ্রমিকের মৃত্যু শেরপুরে নকল সোনার বারসহ ২ প্রতারক গ্রেফতার

হঠাৎ ঝটিকা অভিযানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা! চার প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

রেজওয়ান উল্লাহ, কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি

কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তা এক ঝটিকা অভিযান চালিয়ে চার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জরিমানা করা হয়েছে।

বুধবার( ৮ই জুলাই) সন্ধ্যার দিকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সন্ধ্যা ৭টার পর সকল প্রকার দোকান পাট খুলে রেখে ক্রয়-বিক্রয় করার সময় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ও মুখে মাস্ক না পরার অপরাধে বৃষ্টি ফামের্সীসহ চার প্রতিষ্ঠানকে এ জরিমানা করা হয়।
সেই সাথে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী দোকান পাট খোলা রেখে বেঁচা কেনার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে এ যাত্রায় রক্ষা পেলেন জরিমানাকৃত প্রতিষ্ঠানগুলো।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তা কলারোয়ায় যোগদানের পর এই প্রথম পৌর বাজারে ঝটিকা অভিযান চালিয়ে সবাইকে মুগ্ধ করে দিয়েছেন।
সন্ধ্যা ৭টার পর দোকান খোলা রেখে বেঁচা কেনার সময় মুখে মাস্ক না পরার অপরাধে চৌরাস্তা মোড়ে অবস্থিত বৃষ্টি ফামের্সী’র মালিক শওকত হোসেনকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অপরদিকে থানার সামনে অবস্থিত নজরুলের পানের দোকান খোলা রেখে বেঁচা কেনার অপরাধে ৫’শত টাকা এবং বাজারের ভীতরে দুই মুদিখানার দোকানীকে ৯’শত টাকা জরিমানা করা হয়েছে। চার প্রতিষ্ঠানকে সর্বমোট ২৪’শত টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার খবর পেয়ে মুহূর্তের মধ্যে সকল ব্যবসায়ীরা দোকান পাট বন্ধ করে দেন।

সচেতন মহল বলছেন, দিন দিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাই মানুষের মধ্যে কোন অনুভূতি না থাকায় এ সকল প্রতিষ্ঠানে ক্রমাগত মানুষের ভীড় লেগেই থাকতো।

সেজন্য প্রতিনিয়ত বাজার মনিটরিং করে দ্রব্যেমূল্য মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকে তাহলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরীন কান্তার নেতৃত্ব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করলে তা হবে শুভনিয়। তাই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বাজার মনিটরিং করার দাবিও করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা আক্তার হোসেন, থানায় অফিসার ইনচার্জ শেখ মুনীর উল গীয়াস, এস আই ইসরাফিল হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস সহকারী এম এ মান্নান প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ

Spoken English কোর্স